1. riajul.kst1@gmail.com : riajul :
  2. riajul.kst@gmail.com : riajul.kst@gmail.com :
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১১:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় অর্থ আত্মসাতের দায়ে সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারীর কারাlদন্ড ও জরিমানা কুষ্টিয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত ছাত্রলীগ নেতাকে ঢাকায় রেফার্ড কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন কুষ্টিয়ায় বাড়ি লিখে বের করে দেন মাকে বাড়ির আঙিনায় গাঁজা চাষ, পুলিশের হাতে আটক কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে নিজঘর থেকে স্কুল ছাত্রের লাশ উদ্ধার কুষ্টিয়ার মিরপুরে ফুল ব্যবসায়ীকে গলাকেটে হত্যা কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় ট্রাকের চাপায় মোটর সাইকেল চালক নিহত, আহত-২ কুষ্টিয়ায় পুলিশের হাতে ভুয়া দুদকের কর্মকতা আটক কুষ্টিয়ায় আঁশি বোতল ফেন্সিডিল বিক্রয়ের অভিযোগে যুবকের কারাদন্ড

হরিণাকুন্ডুতে এক পরিবারের সবাই প্রতিবন্ধি মাথা গোঁজার ঠাই নেই

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর, ২০২০
  • ৩১২ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডুু উপজেলার ৪নং দৌলতপুর ইউনিয়নের ফতেপুর গ্রামের একই পরিবারে ৪ জন প্রতিবিন্ধ রয়েছে। সবার প্রতিবন্ধি ভাতার কার্ড থাকলেও রাতে মাথাগোঁজার ঠাই নেই। ভাঙ্গাচোরা বাড়িতে তাদের বসবাস। তথ্য নিয়ে জানা গেছে শাহাদত মন্ডলের ছেলে শহিদুল ইসলাম, খালা হাসিরন নেছা ও ছোটখালা কুলসুম সবাই প্রতিবন্ধি। এদের মধ্যে একজন শারীরিক ও তিনজন বুদ্ধি প্রতিবন্ধি। শাহাদত মন্ডল জানান, আমি একজন অসহায় গরিব মানুষ। ঠিকমত চলতে পারি না। পায়ে সমস্যা। নিরুপাই হয়ে খোড়া পা নিয়ে ভ্যানগাড়ী চালিয়ে সংসার চালাতাম। বয়সের ভারে তাও পারি না। এখন ঝুড়ি বুনিয়ে সংসার চালাতে হয়। ঝুড়ি বিক্রি না হলে অনাহারে দিন কাটে। তিনি বলেন আমার দৈনিক আয় দুই শত টাকা। বর্তমান বাজারে এই টাকা দিয়ে কিছুই হয় না। ফলে খুব কষ্ট আমার দিন কাটে। তিনি বলেন আমার কোন ঘরবাড়ী নেই। শুনেছি প্রধানমন্ত্রী অসহায় মানুষের বাড়ী তৈরী করে দিচ্ছেন। যদি তিনি একটি আমার ঘর করে দিতেন তবে এই প্রতিবন্ধীদের নিয়ে বাকী জীবনটা পার করতাম। শাহাদত মন্ডল জানান, আমার পরিবারে আমিসহ চারজন প্রতিবন্ধী। এর মধ্যে শহিদুল, হাষিরণ ও কুলসুম সরকার থেকে ভাতা পায়। তাদের টাকা দিয়ে সংসার চলে। পরিবারটির ভাষ্য, অনেক সচ্ছল পরিবারকে সরকারী ঘর করে দেওয়া হচ্ছে। অথচ আমাদের ঘর হয় না। আমরা টাকা দিতে পারি না বলে আমাদের কেও ঘর করে দেয় না বলে প্রতিবন্ধি পরিবারটি মনে করেন। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা সৈয়দা নাফিস সুলতানা জানান, ঘটনাটি আসলেই মর্মান্তিক। একই পরিবারে চারজন প্রতিবন্ধি এটা আমার জানা ছিল না। তিনি বলেন এই পরবিারের কথা কেও আমাকে বলেনি। তিনি খোঁজ নিয়ে ব্যাবস্থা নিবেন বলে জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর ....

All rights reserved © 2020 tajasangbad.com
Design & Developed BY Anamul Rasel
x