1. riajul.kst1@gmail.com : riajul :
  2. riajul.kst@gmail.com : riajul.kst@gmail.com :
মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ১০:৩৭ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়ার কুমারখালী অপহরণ করে ইমরান শেখ হত্যার অভিযোগে ফাঁসি-১, আমৃত্যু-২ ও যাবজ্জীবন-৩

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ, ২০২২
  • ৫৮৯ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

জুয়েল, কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়ার কুমারখালী থানার ইমরান হোসেন(২২) নামের এক যুবককে অপহরণ ও গলাকেটে দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে হত্যাকরে লাশ গুমসহ মরটসাইকেল ছিনতাইয়ের দায়ে করা মামলায় ১জনের মৃত্যুদন্ড দুইজনের আমৃত্যু ও ৩জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ডসহ প্রত্যেকের পৃথক ভাবে জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুর ২ টায় কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আতিরিক্ত আদালত-১এর বিচারক তাজুৃল ইসলামের আদালতে সকল আসামীর উপস্থিতিতে জনাকীর্ন আদালতে এই রায় ঘোষনা করেন। অন্যদিকে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানার একটি বোমা হামলা মামলায় দুই জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন জেলা ও দায়রা জজ বিশেষ আদালতের বিচারক আশরাফুল ইসলামের আদালত আসামীদ্বয়ের উপস্থিতিতে এরায় ঘোষনা করেন আদালত।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত কুমারখালী উপজেলার কোমরপুর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল মান্নানের ছেলে শহিদুর রহমান পিরু ওরফে মিঠুন, আমৃত্যু কারাদন্ড প্র্প্তা হলেন- একই উপজেলার মনোহরপুর গ্রামের বাসিন্দা ফরিদুল ইসলাম লতিফের ছেলে মেহেদী হাসান(২৫) ও মেহিদী হাসান জয়(২৬)। এছাড়া যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- নাহিদ হাসান, ওয়াদুদ ইসলাম এবং মুন্সি অনিক হাসান। এছাড়া দৌলতপুর থানার বোমা হামলা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত হলেন- জাহিদুল ইসলাম জাহিদ ও জামিরুল ইসলাম ওরফে মরু।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ১৬ মার্চ দুপুরে কুমারখালী উপজেলার মনোহরপুর গ্রামের বাদশা সেখের ছেলে ইমরান হোসেন আত্মীয় বাড়িতে দাওয়াতে যাওয়ার উদ্দেশে মটরসাইকেল যোগে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন। দুইদিন পর এ্কই উপজেলার দুইদিন পর পাশর্^বর্তী গ্রামের ভুট্টাক্ষেত থেকে একটি মাথাবিহীন লাশ উদ্ধার করে কুমারখালী থানা পুলিশ। সংবাদ পেয়ে নিহতের পিতা বাদশা সেখ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশটি তার ছেলে ইমরানের বলে সনাক্ত করেন। এঘটনায় নিহতের পিতা বাদি হয়ে অপহরণ ও গলাকেটে দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে হত্যা ও লাশ গুমসহ মরটসাইকেল ছিনতাইয়ের অভিযোগ এনে অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে কুমারখালী থানায় মামলা করেন।
এছাড়া ২০১০ সালের ২৩নভেম্বর সন্ধায় কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের আওয়ামী লীগ সমর্থিত সংসদ সদস্য আফাজ উদ্দিন আহম্মেদ তার নিজ বাড়িতে স্থানীয় জনগন ও নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময়কালে অতর্কিতে বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় বোমা বহনকারী দুইজন এবং সাক্ষাৎপ্রার্থী এক স্কুল শিক্ষকসহ তিনজন নিহত এবং বেশ কয়েকজন গুরুতর আহতের ঘটনা ঘটে। এঘটনায় সংসদ সদস্যের ছেলে এজাজ আহমেদ বাদি হয়ে দৌলতপুর থানায় তিনজনের নামোল্লেকসহ অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে মামলা করেন।

মামলাটি তদন্ত শেষে অপহরণ হত্যা ছিনতাইয়ের অভিযোগ এনে ১৯ মে ২০১৯ সালে এবং বোমাহামলা মামলায় ২০১১ সালের ১৪ মার্চ আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন কুমারখালী ও দৌলতপুর থানা পুলিশ।

আদালতের পিপি অনুপ কুমার নন্দী বলেন, কুমারখালী থানার ইমরান নামের যুবককে অপহরণ করে তার মটর সাইকেল ছিনতাই এবং দেহথেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে লাশ গুনের চেষ্টা মামলায় দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় তাদের মধ্যে একজনের ফাঁসি দিয়ে মৃত্যুদন্ড, দ্ইুজনের আমৃত্যু এবং ৩জনের যাবজ্জীবন সাজাসহ জরিমানা আদেশ দেন বিজ্ঞ আদালত। ধার্যকৃত জরিমানার অর্থ পরিশোধ ব্যর্থ হলে প্রত্যেকে অতিরিক্ত আরও এক বছর করে সাজা ভোগ করতে হবে। একই ঠান্ডা মাথায় পূর্ব পরিকল্পনা মতে রাজনৈাতিক হীনস্বার্থ চরিতার্থের লক্ষে অতর্কিতে বোমাহামলা করে নিরীহ মানুষকে হত্যার দায়ে আনীত অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় দুই জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ডসহ জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর ....

All rights reserved © 2020 tajasangbad.com
Design & Developed BY Anamul Rasel
x