1. riajul.kst1@gmail.com : riajul :
  2. riajul.kst@gmail.com : riajul.kst@gmail.com :
মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৫৯ পূর্বাহ্ন

নকল বিড়ি তৈরি, জানেনা প্রশাসন!

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২০ এপ্রিল, ২০২২
  • ৩১ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি :
ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ উপজেলার দেবরাজপুর গ্রামে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে রমরমা ভাবে নকল বিড়ি তৈরি করছে। যে কারণে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন ধরনের নকল বিড়ির রমরমা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে কতিপয় অসাধু বিড়ি ব্যাবসায়ী উপজেলার দেবরাজপুর গ্রামের বেশ কয়েক জন অসাধু ব্যক্তি ১৯৬ নং আজিজ বিড়িসহ নানা ধরনের বিড়ি নকল ভাবে তৈরী করে তাতে নকল ব্যান্ডল লাগিয়ে স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি আশপাশের জেলার বাজারেও বিক্রি করছে। দীর্ঘ প্রায় ৩০ বছর ধোরে এ গ্রামে নকল বিড়ি তৈরী হয়ে আসছে। কিন্তু এতে প্রশাসনের কোন মাথা ব্যাথা নেই। সরোজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, দেবরাজপুর গ্রামের উত্তর দক্ষিণ ও পশ্চিম পাড়ায় অন্তত ১৫ টি বাড়িতে নকল বিড়ি তৈরীর কাজ চলছে। গ্রামের নি¤œআয়ের মানুষেরা বিশেষ করে মহিলারা এ বিড়ি তৈরি করছেন। তারা বিভিন্ন বিড়ির পাতা, লেবেল, ব্যান্ডল ও তামাক পাতা নকল করে বাড়িতে তৈরি করে তা মহাজনের নিকট পৌঁছে দিচ্ছেন। নকল বিড়ির ১০০০ স্টিক তৈরি করলে তারা মজুরি হিসেবে ৩০ টাকা পান।বিড়ি তৈরির কয়েকটি ধাপ রয়েছে। যেগুলো আলাদা আলাদা ভাবে তারা করে থাকেন। এসব বিড়ি তৈরি করে রাতের আধাঁরে বিভিন্ন হাট-বাজারে এজেন্ট ও বড় ব্যবসায়ীদের নিকট বিক্রি করে থাকেন ব্যাবসায়ীরা। নকল ব্যান্ডেল লেবেল লাগিয়ে নকল বিড়ি তৈরি ও বিক্রির অভিযোগে পূর্বে এই গ্রামের একাধিক বাড়িতে বেশ কয়েক বার অভিযান চালিয়ে বিড়ি তৈরির মালামালও জব্দ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবুও তারা আইনকে তোয়াক্কা না করে নকল বিড়ির ব্যবসা পুরা দমে চালিয়ে আসছে দীর্ঘদিন যাবৎ। কালিগঞ্জ দেবরাজপুর এর সবথেকে বড় ব্যবসায়ী হলেন শাহজাহান আলী। তিনি শুধু বিড়ি নয় নকল গুলও তৈরি করে তা বাজারে বিক্রি করেন। বিড়ি তৈরির মেশিন ও সরঞ্জাম রয়েছে তার বাড়িতে। গ্রামের বিভিন্ন পাড়ার মহিলা ও পুরুষ মিলে তার বিড়ি তৈরির আউটসোর্স ওয়ারকার হিসেবে কাজ করে।কালীগঞ্জ বিভিন্ন ট্রান্সপোর্ট এর গাড়িতে দেশের বিভিন্ন স্থানে এ নকল বিড়ি পাঠানো হয়। রায়গ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলী হোসেন অপু জানান, গ্রামটিতে নকল বিড়ি তৈরি হয়। যারা এ কাজের সাথে যুক্ত রয়েছেন তাদেরকে একাধিকবার সতর্ক করা হয়েছে। তবুও তারা নিষেধ না মেনে অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাই আমি প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই,অবৈধ নকল এই ব্যবসার সাথে জড়িতদের অতিসত্বর আইনের আওতায় আনা হোক। কালীগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত নজরুল ইসলাম জানান, দেবরাজপুর গ্রামের বিড়ি তৈরির খবর আমাদের জানা নাই। আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম। খোঁজ খবর নিব, সেখানে যদি আইন বিরোধী কাজ হয়ে থাকে তাহলে আমরা অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করব।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর ....

All rights reserved © 2020 tajasangbad.com
Design & Developed BY Anamul Rasel
x