1. riajul.kst1@gmail.com : riajul :
  2. riajul.kst@gmail.com : riajul.kst@gmail.com :
সোমবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৪:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

আমিন ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ভূল রিপোর্টের প্রাণ গেল  স্কুল শিক্ষার্থী

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২২
  • ১৮৮ বার নিউজটি পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার :
রোগ নির্নয় ও চিকিৎসার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ন একটি উপাদান ল্যাবরেটরি টেষ্ট। আর এই টেষ্ট নিয়ে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়গনস্টিক সেন্টারগুলোর কারসাজির অভিযোগ দীর্ঘদিনের। প্রতিনিয়তই ডায়গনস্টিক সেন্টারগুলোর ভূল রিপোর্টের কারনে ভূল চিকিৎসায় রোগীদের শারীরিক নানা জটিলতাসহঘটছে প্রাণহানীর মতঘটনা। গত শনিবার আজমির (১৩) নামে এক স্কুল ছাত্র আমি ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের ভুল রিপোর্টে ভুল ঔষুধের সেবনে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে বলে দাবী করেছেন পরিবারের স্বজনেরা।


নিহত ঐ ছাত্রের পরিবারের স্বজনরা আরও বলেন গত ২৩ অক্টোবর কুষ্টিয়া সদর উপজেলার মাঝিলা গ্রামেরআক্তার মন্ডল তার ১৩ বছর বয়সি ছেলে আজমিরের পেটে ব্যাথার কারনে চিকিৎসা করাতে আসেন কুষ্টিয়া জেনারেল হাপাতালে। চিকিৎসক প্রাথমিকভাবে দেখে তাকে আল্ট্রসনো করার পরামর্শ দেন চিকিৎসক। তিনি ঐ দিনই তার ছেলেকে নিয়ে কুষ্টিয়ার আমিন ডায়গনস্টিক নামে একটি ডায়গনস্টিক সেন্টারে টেষ্ট করান। সেখানে রিপোর্ট আসে লিভারে ইনফেকসন হয়েছে। চিকিৎসক ঐ রিপোর্ট অনুসারে ওষুধ লিখে দেন। ওষুধ খাওয়ার পরেও কমেনা পেটের ব্যথা। তাই ২৬ অক্টোবর আবারও ছেলে আজমিরকে নিয়ে হাসপাতালে আসেন আক্তার মন্ডল। ওষুধে পেটের ব্যথা না কমায় চিকিৎসকের সন্দেহ হয় টেষ্টের রিপোর্ট নিয়ে। তাই আবারও করাতে বলেন টেষ্ট। এখানে বাধে বিপত্তি। অন্য একটি ডায়গনস্টিক সেন্টারে টেষ্ট করালে রিপোর্ট আসে বাষ্ট এ্যপেন্ডিসাইড। তখন চিকিৎসক জরুরী ভিত্তিতে অপারেশনের পরামর্শ দেন। অপারেশন হয় কিন্তু বাচাঁনো যায়না আজমিরকে। টেষ্ট ভূলের কারনে ভূল চিকিৎসায় সন্তান হারানোকে মেনে নিতে পারছেনা পরিবার।
নিহতের বাবা ও মা বলছেন আমিন ডায়গনস্টিক সেন্টারের দক্ষ কর্মী না থাকায় ভূল রিপোর্টের কারনেই মৃত্যু হয়েছে আজমিরের এমনটাই বলছেন আজমিরের স্বজনেরা। টেষ্ট রিপোর্টের ক্ষেত্রে ডায়গনস্টিক সেন্টারগুলোর কারসাজি বন্ধের দাবী জানিয়েছেন তারা।
এ বিষয়ে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল চিকিৎসক ড.মাহফুজুর রহমান বলেন সঠিক ভাবে রোগ নির্নয়ের জন্য ল্যাবরেটরি টেষ্ট দেওয়া হয় রোগীদের। সেই অনুসারে দেওয়া হয় চিকিৎসা। তবে যদি রিপোর্ট ভূল হয় চিকিৎসার ক্ষেত্রে রোগীর সমস্যা হবে বলে তিনি জানান।
কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাপাতাল, মেডিসিন বিভাগ সহকারি রেজিষ্টার ড. রাজিব মৈত্র বিশেষজ্ঞ বলছেন, ডায়গনস্টিক সেন্টারগুলোতে দক্ষ টেকনিশিয়ান না থাকার কারনে ঘটছে এমন অনাকাঙ্খিত ঘটনা। বিষয়গুলো কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া উচিত বলে মনে করেন তারা।
তবে এবিষয়ে আমিন ডায়াগনস্টিক সেন্টার ম্যানেজার সাথে বলতে গিলে তিনি কথা বলতে রাজী হননি।
ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোরচিকিৎসা সেবার নামে বানিজ্যকরন ও অব্যবস্থাপনা বন্ধে কারযকারি পদক্ষেপের দাবী সাধারন মানুষের। (সূত্রঃ দৈনিক কুষ্টিয়ার খবর)

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর ....

All rights reserved © 2020 tajasangbad.com
Design & Developed BY Anamul Rasel
x
error: Content is protected !!